June 15, 2024, 10:30 pm

আহমদ ছফা একজনই।

জনতার দাবি নিউজ ডেস্ক
  • খবর প্রকাশিত সময়ঃ Sunday, March 17, 2024
  • 16 পড়েছেন:

মজার তথ্য।
আহমদ ছফার শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক স্যার কে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ডি.লিট উপাধি দিয়ে সম্মানিত করে। সে উপলক্ষ্যে আহমদ ছফা তাঁর স্যারকে একটি সিল্কের পাঞ্জাবি, পাজামা, একটি ভালো ফাউন্টেন পেন এবং খুব দামি কিছু লেখার কাগজ উপহার দিয়েছিলেন। তিনি অনুরোধ করেছিলেন রাজ্জাক স্যার যেন তার উপহার দেওয়া কলম ও কাগজে উনার আত্মজীবনী লেখা শুরু করেন।

জবাবে আব্দুর রাজ্জাক স্যার হাসতে হাসতে একটা ঘটনার কথা উল্লেখ করে বলেন;

” আমি একবার মিস্টার এ কে ফজলুল হকেরে যাইয়া কইলাম, আমি আপনের জীবনীটা লেখবার চাই। আপনি যদি দয়া কইর‍্যা পারমিশনটা দেন, কাজ শুরু করবার পারি। হক সা’ব তখন ইস্ট পাকিস্তানের গভর্নর। আমার প্রস্তাব শুইন্যা খেকাইয়া উইঠ্যা কইলেন, আমার জীবনী লেখতে চাও, নিশ্চয়ই কোন মতলব আছে। আমি কইলাম, মতলব তো একটা অবশ্যই আছে। হক সাহেব কইলেন হেইডা আগে কও।

আমি কইলাম আপনে যখন গাঁও গেরামে যান, মাইনষের লগে এমন ব্যবহার করেন, তারা মনে করে জনম ভইর‍্যা আপনি গাঁও গেরামে কাটাইয়া তাগো সুখ-দুঃখের অংশ লইতাছেন।

তারপরে গাঁও গেরাম থেইক্যা ঢাহা শহরে আইস্যা আহসান মঞ্জিলের ছাদে উইঠ্যা নওয়াব হাবিবুল্লাহর লগে যখন গুড্ডি উড়ান, লোকজন দেইখ্যা আপনেরে নওয়াব বাড়ির ফরজন্দ মনে করে।

তারপর আবার যখন কলিয়াতায় যাইয়্যা শ্যামাপ্রসাদের লগে গলা মিলাইয়া ভাই বইল্যা ডাক দেন কলিকাতার মানুষ চিন্তা করে আপনে শ্যামাপ্রসাদের মেলায় হারিয়ে যাওয়া ভাই।

বাংলার বাইরে লখনৌ কিংবা এলাহাবাদে গিয়ে মুসলিম নাইট নবাব গো লগে যখন বয়েন, দেখলে মনে অইব আপনে তাগো একজন।

এই এতগুলা ভুমিকায় আপনে এতো সুন্দর সাকসেসফুল অভিনয় করতে পারেন, এইডা ত একটা মস্ত ক্ষমতা। এই ক্ষমতা স্যার অলিভার লরেন্সেরও নাই। এই অভিনয়ক্ষমতার একটা এনকোয়ারি আমি করবার চাই। আর নইলে আপনের আসল গুণপনা কোথায় হেইডা ত আমাগো অজানা নাই।

হক সাহেব হুঙ্কার ছাইড়া জিগাইতে লাগলো, তুমি আমার সম্পর্কে কি জান? আমি কইলাম, আপনে সুন্দর সুন্দর বিশ্বাসযোগ্য মিছা কথা কইবার পারেন। আমার জবাব শুইন্যা হক সাহেব হ হ কইরা হাইস্যা উঠলেন।”

আহমদ ছফা আরেকবার শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক কে শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে উনার মতামত জানতে চাইলেন। তখন ও শেখ সাহেব বেঁচে আছেন।রাজ্জাক স্যার একটু নড়েচড়ে বসলেন। তারপর বললেন;

” নাইন্টিন সিক্সটি থেকে নাইন্টিন সেভেন্টি ওয়ান পর্যন্ত সময়ে শেখ সাহেব যারেই স্পর্শ করছেন, তার মধ্যে আগুন জালাইয়া দিসেন। হের পরের কথা আমি বলবার পারুম না। আমি গভর্মেন্টের কারো লগে দেখাসাক্ষাৎ করি না। সেভেন্টি টুতে একবার ইউনিভার্সিটির কাজে শেখ সাহেবের লগে দেখা করতে গেসিলাম। শেখ সাহেব জীবনে অনেক মাইনষের লগে মিশছেন তো আদব লেহাজ আছিল খুব ভালা। অনেক খাতির করলেন।

কথায়-কথায় আমি জিগাইলাম, আপনের হাতে তো অখন দেশ চালাইবার ভার। আপনে অপজিশনের কী করবেন। অপজিশন ছাড়া দেশ চালাইবেন ক্যামনে। জওহরলাল নেহরু ক্ষমতায় বইস্যাই জয়প্রকাশ নারায়ণরে কইলেন, তোমরা অপজিশন পার্টি গইড়্যা তুলো।

শেখ সাহেব বললেন আগামী নির্বাচনে অপজিশন পার্টিগুলো ম্যাক্সিমাম পাচঁটার বেশি সিট পাবে না। আমি একটু আহত অইলাম, কইলাম, আপনে অপজিশনরে একশো সিট ছাইড়া দেবেন না? শেখ সাহেব হাসলেন,আমি চইলা আসলাম। ইতিহাস শেখ সাহেবরে স্টেটসম্যান অইবার একটা সুযোগ দিসিলো। তিনি এইডা কাজে লাগাইবার পারলেন না।”

~ যদ্যপি আমার গুরু(আহমদ ছফা)

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য খবর এই ক্যাটাগরিরঃ